চায়না, ইউএনডিপি ও ইউএনএফপিএ-এর যৌথ উদ্যোগে নীলফামারীতে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা

Feb 10, 2018

জাতিসংঘ উন্নয়ন সংস্থা (ইউএনডিপি), জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) ও বাংলাদেশে অবস্থিত চায়না দূতাবাস গতকাল শনিবার নীলফামারীতে মাননীয় সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও নীলফামারীর  জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রাহিম এর উপস্থিতিতে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করে, যার মধ্যে ছিল দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত জিনিষপত্র ও বাসা বাড়ি পুনর্নির্মাণের জন্য টিন ।

গত বছর বন্যায় ৩১ জেলার প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয় এবং ৮২,০০০ ঘরবাড়ির ক্ষতি সাধন হয় । এখনো সেখানকার জনসাধারণ বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারেনি। আর এই কারণে চায়না সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ইউএনডিপির সাথে যৌথ ভাবে,বাংলাদশে দুর্যোগে আক্রান্তদের জন্য ৪  মিলিয়ন ইউএসডির আর্থিক সহায়তা প্রদান করে।

এই যৌথ উদ্যোগের আওতায় বন্যার্তদের পাশাপাশি, ইউএনএফপিএ এর মাধ্যমে রোহিঙ্গা নারীদের জন্য তাদের জীবন রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় সাহায্য প্রদান করা হচ্ছে । কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, বগুড়া এবং নীলফামারীর মোট ১৩,৯১০ বন্যায় আক্রান্ত পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া ছাড়াও কক্সবাজারে ১১৮,০০০ রোহিঙ্গা নারী জরুরি প্রজনন স্বাস্থ্য রক্ষার দ্রব্য সামগ্রী গ্রহণ করেছে |

নীলফামারীতে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কালে বাংলাদেশে অবস্থিত চায়নার অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কাউন্সিলর লি গুআংজুন বলেন, "চায়না বাংলাদেশের বন্যার্ত এবং এখানে অবস্থান নেওয়া শরণার্থীদের পাশে আছে" তিনি ইউএনডিপির এই মানবিক সাহায্যের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং মনে করেন এই ত্রাণ সামগ্রী বন্যার্ত ও শরণার্থীদের জীবনমান উন্নয়নে সাহায্য করবে ।

আসাদুজ্জামান নূর তার বক্তব্যে বলেন, " বন্যার্তদের জন্য ইউএনডিপি এবং চায়নার এই যৌথ প্রচেষ্টা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে এবং ভবিষ্যতে যে কোন দুর্যোগের সময় তারা পাশে থাকবে "। এই প্রকল্পের আওতায় রোহিঙ্গা নারীদের সাহায্যের জন্য তিনি ইউএনএফপিএ -এর প্রশংসা করেন।

সুদীপ্ত মুখার্জী, ইউএনডিপি বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, "চায়না সবসময়ই মানবিক সাহায্যের ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল দেশের পাশে থাকে এবং জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য অগ্রগ্রামী ভূমিকা পালন করে । এই যৌথ উদ্যোগ হচ্ছে দক্ষিণ দক্ষিণ সহযোগিতার একটি অন্যন্য উদাহরণ" । তিনি আরো বলেন "প্রথমবারের মতো আমাদের এই যৌথ উদ্যোগের সফলতার কারণে আমি আশা করি আগামীতেও চায়না, ইউএনডিপির সাথে বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে কাজ করবে "

ইউএনএফপিএ এর অবদানের কথা উল্লেখ করতে গিয়ে সংস্থাটির বাংলাদেশের সহকারী প্রতিনিধি আইওরি কাটো বলেন "ইউএনএফপিএ ২৬০০০ বন্যা আক্রান্ত নারী ও মেয়েদের তাদের প্রজনন স্বাস্থ্য সেবার জন্য সাহায্য প্রদান করেছে এবং তারা যেন জীবন রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় মানবিক সাহায্য পায়, সেই বিষয় নিশ্চিত করেছে । এছাড়াও কক্সবাজারে শরণার্থী শিবিরে অবস্থিত নারী ও মেয়েরা যেন লিঙ্গ ভিত্তিক নির্যাতনের শিকার না হয় সেই জন্য তাদেরকে প্রয়োজনীয় উপাদান সরবরাহ করেছে "।

অনুষ্ঠানে অন্যানদের মাঝে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার ও বিভিন্ন এনজিও এর প্রতিনিধি বৃন্দ I

UNDP Around the world

You are at UNDP Bangladesh 
Go to UNDP Global